https://www.viva-awa.com/tag www.bachelortreats.com
WelcomeTO Dr. Fida VIRUAL
.01

ABOUT Dr. Fida Hasan

PERSONAL DETAILS
Queensland University of Technology, Brisbane
mapiconimg
email@fidahasan.net
0422262477
Welcome to Fida Hasan's Personal and Academic profile Available as Freelance Consultant

BIO

ABOUT FIDA

Dr. Fida Hasan is an entrepreneurial academic, earned Fellow From Higher Education Academy (FHEA), UK, for the excellence of his academic leadership through teaching and supervising student in higher academia.

He is an Award-winning Researcher who enjoys practicing innovation through teaching, often cheered as an “enthusiastic” teacher.

Over the past years, Dr. Fida Hasan has held various leadership positions and has received recognition of his commitment, professional accomplishments, and community outreach efforts in the technology, education, and social communities. He is open to offering consultation services. Currently, he is working as a Postdoctoral Research Fellow at QUT, Brisbane.

To read Fida Hasan's Research and Personal blog activities, you can help yourself clicking these links, Scholar and Personal Blog.

Consultant

Consultation and Development Service

FACTS

FACTS ABOUT FIDA

Fida Hasan seeks to inspire a generation of technology students to take on world challenges and provide them with the academic and professional skills.

In Academia, he particularly enjoys practising innovation through teaching. Since ICT is a rapidly growing field, he believes that there is much room for further innovation. Thus, he loves to share his knowledge and ideas in his classroom along with general curricular. Having lectured more than 2500 undergraduate students across four universities, supervised over 80 MIT project/thesis students Fida Hasan brings a wealth of experience in working with the brightest engineering minds of the future.

He has a passion for disruptive technology and the application of the latest technologies, including Blockchain and Machine Learning, to help address real-world communication problems and create a more effective solution.

.02

RESEARCH

INDUSTRY RESEARCH PROJECTS

PROJECT TITLE: Vehicle to Vulnerable Road User Solution for Brisbane

DESCRIPTION OF THE PROJECT

vehicle2vulnerable Status: Active

Partner: Transport and Main Road (TMR), QLD and iMOVE CRC.

This research based development work focuses on ’Vehicle to Vulnerable Road Users (V2VRU) interactions’ for achieving Road Safety using existing technologies and also evolving Internet of Things (IoT) technologies. As the role of the Project Manager (PM), my responsibility involves maintaining all party collaboration and also conducting research and plan, design and development.

PROJECT TITLE: PostScript: A web application to save and share memories. Project Supervisors:

DESCRIPTION OF THE PROJECT

vehicle2vulnerable Status: Inactive (Completed)

An UI/UX based Industry project focuses on creating a platform that stores memories of user so that it can be viewed later by future generations. A team with Nine active memebers from QUT and Aureolin Group tried to find an innovative way to preserve the memories of people and share them with the recipient after the demise of one who created the memories. The design and development challenges was to align rythimatically a set of features and set of instruction.

ACADEMIC RESEARCH PROJECT

PROJECT TITLE: Service-Oriented Architecture and Management System

DESCRIPTION OF THE PROJECT

vehicle2vulnerable Status: Active Proposal

The primary objective of this research is twofold. Firstly, identifying the feasibility and effectiveness of CIoT platform-based UAV (i.e., drone) services and their use cases. This also includes service designing and modeling from similar research and models, software engineering, and distributed systems in consideration of service functionalities, behavior, and quality. Secondly, the recommendation and service composition of drone services for commercial applications as DaaS...

PROJECT TITLE: Evolution towards Cognitive Internet of Vehicles (CIoV): Technology and Security Issues

DESCRIPTION OF THE PROJECT

Trulli
Status: Active Proposal

Over the past few years, we have experienced great technological advancements in the information and communication field, which has significantly contributed to reshaping the Intelligent Transportation System (ITS) concept. Evolving from the platform of a collection of sensors aiming to collect data, the data exchanged paradigm among vehicles is shifted from the local network to the cloud. With the introduction of cloud and edge computing along with ubiquitous 5G mobile network, it is expected to see the role of Artificial Intelligence (AI) in data processing and smart decision imminent. CIoV, which is abbreviated from Cognitive Internet of Vehicle, is one of the recently proposed architectures of the technological evolution in transportation, and it has amassed great attention. It introduces cloud-based artificial intelligence and machine learning into the transportation system. This research focuses to identify the future expectations of CIoV and it's security issues. Based on this idea, a conference paper is published so far, this can be found here.

PROJECT TITLE: Novel Application of <b>Blockchain</b>

DESCRIPTION OF THE PROJECT

vehicle2vulnerable Status: Active

The primary objective of this research is twofold. Firstly, identifying the feasibility and effectiveness of CIoT platform-based UAV (i.e., drone) services and their use cases. This also includes service designing and modeling from similar research and models, software engineering, and distributed systems in consideration of service functionalities, behavior, and quality. Secondly, the recommendation and service composition of drone services for commercial applications as DaaS...

PROJECT TITLE: Vehicle to Vulnerable Road User Solution Using BLE 5

DESCRIPTION OF THE PROJECT

vehicle2vulnerable This project has engaged with companies from the cycling, automotive and smart city industries to create communications solutions for drivers and vulnerable road users (VRUs).

previous arrowprevious arrow
next arrownext arrow
Slider

Selected Publications:   

Journal Publications

  1. K. F. Hasan, Y. Feng, and Y.-C. Tian (2020)"An Experimental Validation of Accurate \& Precise GNSS Time Synchronization in Vehicular Networks", Under Review (1st Round Revision Completed, August 2020), submitted to IEEE Transaction on Intelligent Transportation System. 2020. (Q1, IF:5.7)
  2. K. F. Hasan, Y. Feng, and Y.-C. Tian (2018)"GNSS Time Synchronization in Vehicular Ad-hoc Networks: Benefits and Feasibility", in IEEE Transaction on Intelligent Transportation Systems, March 2018. (Q1, IF: 5.7)
  3. K. F. Hasan, C. Wang, Y. Feng, and Y.-C. Tian (2018)"Time Synchronization in Vehicular Ad-hoc Networks: A Survey in Theory and Practice", in Vehicular Communication, Elsevier Publication, October 2018. (Q1, IF: 5.2)
  4. K. F. Hasan,, M. Morshedul Islam (2011). “Evolution of the 4th Generation Mobile Communication Network: LTE-Advanced”. International Journal of Computer Technology and Applications (IJCTA) (Peer-reviewed), India, Vol: 2(4), 1092-1098, 2011 (ISSN:2229-6093).
  5. K. F. Hasan, M. Shahjahan Ali, Meherun-Nessa, S.K. Aditya and R.K. Mazumder (2011). “Retrieval of Surface Reflectance from NOAA-AVHRR Satellite Data.” Dhaka University Journal of Engineering and Technology (Peer-reviewed), Bangladesh, Vol: 1(2) 121-124, 2011 (January) (ISSN:2218-7413).
  6. K. F. Hasan, M. Shahjahan Ali, M. Saifur Rahman (2011). “A Digital Approach of Satellite Image Processing for Retrieving Surface Parameters.” International Journal of Engineering Research and Application (IJERA) (Peer-reviewed), India, Vol: 1(3), 2011 (ISSN:2248-9622).
  7. K. F. Hasan,, Md. Maruf Morshed and Md. Shahjahan Ali (2010) “A Satellite Based Method to Determine Land Surface Temperature from NOAA-AVHRR Digital Data.” Journal of the Bangladesh Electronic Society (Peer-reviewed), Bangladesh, Vol: 10(1-2), 87-92, 2010 (ISSN:1816-1510).

  Conference Publications

  1. K. F. Hasan, Tarandeep Kaur, and Y. Feng, “Cognitive Internet of Things (CIoV): Vision, Architecture and Challenges,” 17th ITS Asia Pacific Forum 2020, Brisbane, Australia, 25-28 May 2020.
  2. K. F. Hasan, Tarandeep Kaur, Md. Mahdi Hasan and Y. Feng, “Cognitive Internet of Vehicles: Motivation, Layered Architecture and Security Issues,” International Conference on Sustainable Technologies for Industry 4.0, Dhaka, Bangladesh, 24-25 December 2019.
  3. K. F. Hasan, C. Wang, Y. Feng, and Y.C. Tian (2018) "Exploring the Potential and Feasibility of Time Synchronization using GNSS Receivers in Vehicle-to-Vehicle Communications," ITM 2018, Reston, Virginia, USA, Jan 29-2 Feb 2018.
  4. K. F. Hasan and Y. Feng and Y.-C Tian (2018), "Feasibility Studies of Time Synchronization Using GNSS Receivers in Vehicle-to-Vehicle Communications", International Global Navigation Satellite System (IGNSS)-2018, Sydney, Australia, 7-9 Feb 2018.
  5. K. F. Hasan, Yanming Feng (2016). "A Study on Consumer-Grade GNSS Receiver for Time Synchronization in VANET". 23rd Conference of ITS world congress, 10-14 October, Melbourne, Australia, 2016.

.03

Media PUBLICATIONS

PUBLICATIONS LIST
16 Apr 2018

Bamboos in our life

The Daily Prothom-alo

This article published in the leading newspaper The Daily Prothom-alo, Bangladesh. This satire talks about the drama of life in abroad with country people. Click + from top right to read.

Bangla_NewspaperDaily-Prothom-alo Author: Fida Hasan

Bamboos in our life

Author: Fida Hasan
Bangla_NewspaperDaily-Prothom-alo
About The Publication
রম্যরচনা

বাঁশ বৃত্তান্ত

ছবি: প্রথম আলো
উচ্চশিক্ষার্থে ব্রিসবেন এসে প্রথম যে বাসাটায় থাকতে উঠি সেখানে সবাই ছিলেন বাংলাদেশি। আশপাশের দুই-একটি বাসাতে বসবাররতরাও ছিলেন বাংলাদেশি শিক্ষার্থী। প্রথম কয়েকটি দিন বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম আর ব্যস্ততায় কেটে গেল। তাই সবার সঙ্গে ঠিক পরিচিত হতে সুযোগ পেলাম না। এরপর ধীরে ধীরে সবার সঙ্গে পরিচিত হতে শুরু করলাম। পরিচিত হতে গিয়ে লক্ষ্য করলাম, মোটামুটিভাবে সবাই জেনে ফেলেছেন, বাংলাদেশ থেকে নতুন একজন এসেছে। মনে পড়ে, সবার উষ্ণ অভ্যর্থনা আমার ক্লান্তি ও কিছুটা উদ্বেগ কমাতে সাহায্য করেছিল।
নতুন এসেছি তাই স্বাভাবিকভাবেই ‘আমি কেমন’ তা জানার আগ্রহ ছিল সবার। কেউ কেউ আমার সম্পর্কে আগে জেনেও ফেলেছিলেন কিছু। যেমন, গম্ভীর, কম কথা বলে, সুন্দর (!) করে কথা বলে…ইত্যাদি! এগুলো কেউ একজন তাৎক্ষণিকভাবে আমাকে পর্যবেক্ষণ করে সবাইকে জানিয়েছিলেন। যা আমি পরবর্তীতে ওয়াকিবহাল হয়েছিলাম। অনেক দিন শিক্ষকতা পেশায় থাকার দরুন বাচনভঙ্গির নমনীয়তা বা দুর্বলতা সবার গোচরীভূত হয়েছিল বলতে হয়! একই সঙ্গে বুঝতে পেরেছিলাম, এখানে ছোট্ট একটি বাংলাদেশি কমিউনিটি আছে যারা অভূতপূর্বভাবে একে অন্যের সঙ্গে কানেকটেড। অচিরেই ‘সুন্দর করে কথা বলে’ কথাটা, আমার সম্পর্কে মন্তব্যটা যে একটা ‘বাঁশ’ ছিল তা আমি বুঝতে পারলাম। বাংলাদেশে আমার চাকরি জীবনের প্রথম সময়টাতে আমি এই বাঁশ শব্দটার সঙ্গে পরিচিত হয়েছিলাম। আমার এক সহকর্মী তার প্রতিদ্বন্দ্বী সহকর্মীর কোনো একটি অনিষ্ট করে এসে হৃষ্টচিত্তে বলতেন, বাঁশ দিয়ে এলাম। যেমন, প্রতিদ্বন্দ্বী সহকর্মীটির অনুপস্থিতির দরুন তার ক্লাস নিতে গিয়ে কিছু একটা বিগড়ে দিয়ে আসা, কিংবা ভিসি মহোদয়ের কান ভারী করে আসা ছিল একেকটা বাঁশ। প্রথম প্রথম কথাটা কদর্য লাগলেও শ্রদ্ধেয় সহকর্মীটির কর্মতৎপরতা আর একই সঙ্গে কথোপকথনে বারংবার ব্যবহারে ‘বাঁশ দেওয়া’ শব্দটাকে সীমিত পরিসরে আমরা গ্রহণ করেই ফেললাম। নিজে খুব একটা ব্যবহার না করতে পারলেও বাঁশের বহুবিধ ব্যবহার চারপাশে আইডেনটিফাই করতে পারলাম আর বুঝতে পারলাম বাঁশ দেওয়া কিংবা বাঁশ খাওয়া দুটোই বাঙালি জীবনের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে। খুব সম্প্রতি রডের পরিবর্তে বাংলাদেশের সরকারি বিল্ডিংয়ে বাঁশের ব্যবহার দেখে বুঝতে পারছি যে বাঁশ দেওয়াটা ব্যক্তি জীবন থেকে আজ জাতীয় জীবনেও প্রবেশ করেছে! ছবি: প্রথম আলো
 
সে যা হোক, প্রথম প্রথম এই ছোট্ট কমিউনিটিটা আমাকে একটা ফ্রেমে ফেলার চেষ্টা করতে লাগল। নতুন এসেছি, তারা বুঝতে চাচ্ছিলেন আমি লোকটা কেমন! একদিন শুনতে পেলাম, আমি নাকি ‘সিরিয়াস নাঈম ভাই’–এর মতো। জানতে পারলাম, সিরিয়াস নাঈম ভাই হচ্ছেন এখান থেকে পিএইচডি শেষ করে দেশে ফিরে যাওয়া একজন বাংলাদেশি, যিনি সব সময় সিরিয়াস মুডে থাকতেন। একই সঙ্গে বুঝতে পারলাম, আমার কখনো কখনো হয়তো গম্ভীর আচরণের জন্য তারা আমাকে সিরিয়াস নাঈম ভাইয়ের মতো দেখতে পাচ্ছেন। কিন্তু তা ছাপিয়ে আরও একটি বিষয় বুঝতে পারলাম, কমিউনিটিটা আসলে সিরিয়াস নাঈম ভাইয়ের অভাব বোধ করছে। অনেক দিনের একসঙ্গে থাকার কারণেই হয়তোবা তার চলে যাওয়াতে একটা শূন্যতা তৈরি হয়েছে আর সবাই চাচ্ছেন সেই শূন্যতাটা পূরণ হোক। ঘটনাটি বুঝতে পেরে সাবধান হয়ে গেলাম। কারও সঙ্গে দেখা হলেই আমি একগাল হাসি দিই, কখনো সখনো অকারণেই হা–হা করে হেসে উঠি। কারণ ‘সিরিয়াস’ তকমায় আমার আপত্তি আছে। এরপর থেকে বোধ হয় একটু গুটিয়ে চলাও শুরু করলাম। যেই না গুটিয়ে চলা শুরু করেছি, হঠাৎ একদিন একজন ঘোষণা করলেন, আমি হচ্ছি অনুপমের মতো। অনুপম হচ্ছে এখানে পড়াশোনারত একজন বাংলাদেশি যে বেশির ভাগ সময়টাতেই বাসায় থাকে। কোনো আড্ডাবাজি বা নেটওয়ার্কিংয়ে নেই। ছেলেটা বেশ ব্রিলিয়ান্ট, দুই-দুইটা গোল্ড মেডেল সে বাংলাদেশে পড়াকালে পেয়েছে। এই গোল্ড মেডেল নিয়েও আবার কাহিনি। ছেলেপেলেরা দলবেঁধে একদিন জানাল, ওর গোল্ড মেডেল বেঁচে দিয়ে ৭/১১ নামক শপে সবাই একটা কফি পার্টি দেবে। এই তথ্যটা সন্তর্পণে এক কান দু-কান করে আবার তাঁকে জানিয়েও দেওয়া হলো। বাঁশ আরকি! এ রকম বাঁশ অনুপমের বেলায় এত বেশি হলো যে, একসময় সেটাকে একাডেমিক রাইট-আপের ব্যাপ্তির প্যারামিটার ‘সাইটেশন’ হিসেবে উল্লেখ করে গণনা শুরু হলো। বেচারার জন্য দুঃখই হয়। ঘটনা পরম্পরার ভার বহন করতে না পেরে পরবর্তীতে তার একলা জীবন! যা হোক, এ রকম ছোট বড় অনেক বাঁশ প্রতিনিয়ত আমাদের ভেতর চর্চা করা হয়। এই চর্চার ভেতরে আবার বিভিন্ন রকমফের আছে। যেমন, কেউ কেউ আছেন হাসিমুখে শুধুই বিতর্ক তৈরি করেন। এরপর এক কান থেকে আরেক কান করে বিতর্ক ছড়িয়ে দিয়েই নিজেকে সেফলাইনে রেখে মজা দেখতে থাকেন। বিষয়টা প্রায় সবাই-ই ধরতে পারেন, কেউ কেউ হয়তো পারেন না। কিন্তু, যে বিতর্ক তৈরি হয় তা কিন্তু থামে না। কিছুদিন আগে বাংলাদেশে একটা জুভিনিল ক্রাইমের ভিডিও ভাইরাল হয়েছিল। সেখানে একটা টার্ম ছিল ‘গুটিবাজি’ বা ‘গুটিবাজ’। আমাদের কমিউনিটি এই হাসি মুখে বিতর্ক তৈরি করা মানুষটির কার্যকলাপ যে গুটিবাজি তা এই গুটিবাজির সংজ্ঞা জানার পরই আইডেনটিফাই করে ফেলল এবং সরাসরি তাকে গুটিবাজ টাইটেল প্রদান করল। মাঝে মাঝে অকেশনালি একজন আবার গুটিবাজি করেন, তাকে সবাই নাম দিলেন কাঠিবাজ। তো যা হোক, পুরো কমিউনিটিতে যারা মূলত বাঁশ আদানপ্রদানে ভূমিকা রাখছেন তাদের যদি একটা বাঁশঝাড় হিসেবে কল্পনা করি তাহলে সবচেয়ে বড় বাঁশটি হচ্ছে ‘শাদ’ (ছদ্মনাম)। চোখে মোটা ফ্রেমের চশমার হাসিখুশি এই ছেলেটাকে দেখলে বোঝাই যায় না, এ বিষয়ে তার কত এলেম। কখনো যদি কোথায় কাউকে বাঁশ দেওয়ার সম্ভাবনা দেখা দেয় তাহলে তার চোখ দুটি চকচক করে ওঠে। যা মোটা ফ্রেমের আড়ালেও গোচরীভূত হয় এবং বাঁশ পর্ব শেষে মুখ থেকে তার হাসি দেহে গড়িয়ে গড়িয়ে পড়ে। কথায় আছে, ঢেঁকি স্বর্গে গেলেও ধান ভানে। বাংলাদেশিরা যেখানেই যান না কেন বাঁশ চর্চা তারা অব্যাহত রাখবেন, অভিজ্ঞতার আলোকে এটা বলা যায়। তবে স্থান ভেদে তার ভিন্নতা আছে যা উল্লেখ্য। আমাদের এখানের চর্চাটা ক্ষতিকর নয় বরং বিশেষভাবে বিনোদনমূলক। শুধুই সহ্য ক্ষমতাটুকু অর্জন করে নিতে হবে। সহ্য ক্ষমতাটুকু যার যত দ্রুত ডেভেলপ করে তিনি হয়তো তত দ্রুত আপন হন, কাছাকাছি আসেন। রুটিন ধরে চলা জীবনের ফাঁকে অলস সময়টুকু এভাবেই সবার আলাপচারিতায় কিছুটা বিনোদনে ভরে ওঠে, যা সাত সমুদ্র তেরো নদীর ওপারে রেখে আসা আপনজনের অভাবটা কিছুটা হলেও পূরণ করে।

Click the button right below to see from the published links.

16 Sep 2017

Spirit of Life

The Daily Prothom-alo

This article published in the leading newspaper The Daily Prothom-alo, Bangladesh. This talk about life lesson and philosophy.Click + from top right to read.

Bangla_NewspaperDaily-Prothom-alo Author: Fida Hasan

Spirit of Life

Author: Fida Hasan
Bangla_NewspaperDaily-Prothom-alo
About The Publication

আত্মউপোলব্ধি

জীবনবোধ

  ব্রিসবেন নদীর পাশে সুউচ্চ নয়নাভিরাম অট্টালিকা যেখানে কৃত্রিমতাকে প্রকৃতি ভালোবেসে করেছে আপন এক ব্রিসবেন নদীর পাশে সুউচ্চ নয়নাভিরাম অট্টালিকা যেখানে কৃত্রিমতাকে প্রকৃতি ভালোবেসে করেছে আপনসময়টা ছিল ২০০৮। আমার স্টুডেন্ট লাইফের শেষের দিকে। বিশ্ববিদ্যালয় নামক ইনকিউবেটরের জীবন শেষ করে প্র্যাকটিক্যাল লাইফের জীবন শুরুর প্রথম দিকটা। চাকরি খুঁজছি। একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে একদিন ফোন পেলাম। আমার চাকরির আবেদনের প্রেক্ষিতে তারা আমার একটি ভাইভা নিতে চায়। আমাকে জিজ্ঞাসা করল, কখন ফ্রি আছি? সময়টা আমি পরে জানাতে চাইলে ফোনদাতা আমাকে তার পরিচয় দিলেন। তিনি তার ব্যক্তিগত ফোন নম্বরটি দিয়ে সময় করে যোগাযোগ করতে বললেন। পরিচয় থেকে জানতে পারি তিনি একজন শিক্ষক ও তার পদবি অধ্যাপক। পরদিন ইন্টারভিউ দেওয়ার সময়টা জানাতে তার দেওয়া নম্বরে কল দিই। কল দিতেই তার ফোনের ওয়েলকাম টিউনের গানটি শুনে আমি যারপরনাই হতভম্ব হয়ে যাই। তার ওয়েলকাম টিউনের গানটি ছিল গায়ক হাবিবের গান—‘ভালোবাসব…বাসব রে’। এমন টিন-এজদের হিপ হপ সং একজন অধ্যাপকের মোবাইল ফোনের ওয়েলকাম টিউন…! আমি শুধু হতভম্বই নয়, কেন যেন মেনেও নিতে পারছিলাম না। অ্যাপয়েন্টমেন্টের টাইম ঠিক করলেও সেখানে ভাইভা দিতে যাব না ঠিক করলাম। কিন্তু ভাইয়ার পীড়াপীড়ি ও অধ্যাপককে দেখার কৌতূহল মেটাবার ইচ্ছায় নির্ধারিত সময়ে অফিসে গিয়ে দেখা করলাম বটে, তবে সেখানে জয়েন করলাম না।
চাকরি করার পাশাপাশি হায়ার স্টাডিজ অপরচুনিটির খোঁজে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসরদের নিজের আগ্রহের কথা জানিয়ে মেইল করতাম। একদিন একটা বড় রিপ্লাই পেলাম অস্ট্রেলিয়ার একটা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রসপেক্টিভ সুপারভাইজারের কাছ থেকে। পদবিতে তিনি অ্যাসোসিয়েট প্রফেসর ও আমার সিভি দেখে তিনি আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। আনন্দিত আমি তার রিসার্চ সম্পর্কে আরও খোঁজ নিতে শুরু করলাম। অনলাইন ঘেঁটে তার একটা ব্যক্তিগত সাইট পেলাম। সাইটটা খুলেই তো আমার চক্ষু চড়কগাছ। সাইটের হোমপেজের একটা বড় অংশ জুড়ে আছে তার একটা ছবি, ছবিটা এমন যে সেখানে তিনি তার নাকটা ডান হাত দিয়ে বিকটভাবে উঁচু করে ধরে আছেন, আর ক্যাপশনে লিখে রেখেছেন, This is how I look like. হতভম্ব আমি…তার মেসেজের প্রতি-উত্তর দিলাম না। তবে সেই চেহারাটা মনে গেঁথে গেল। তিন. সময় গড়িয়ে যায়। ২০০৮ থেকে ২০১৭। আমার চারপাশটা যেমন পরিবর্তিত হয়েছে, হয়েছি আমিও। স্টুডেন্ট লাইফে যে রাজনীতি অসম্ভব অপছন্দ করতাম, সময়ের প্রয়োজনে সেই রাজনীতিতে নিজেকে কিছুটা জড়িত করেছি, বিষয়টা বোঝার চেষ্টা করেছি। বাংলাদেশকে বুঝতে হলে, বাংলাদেশে ভালো কিছু করতে হলে, রাজনীতি বুঝতে হবে, এটা একটা সহজ সূত্র। একটা সময়ে নিজের ভেতরে এই রাজনীতির অবর্তমানে নিজের অনেক প্রাপ্য বুঝে পাইনি, ঠকিয়েছে অনেকেই। তাই পূর্ণতা পেতে আরও জড়িয়ে পড়েছি। ধীরে ধীরে চিন্তার একটা জগৎ জুড়ে বসে গেছে ধর্ম আর রাজনীতি। এগুলোর আন প্রডাকটিভ রূপ দেখে ভেতরে বিদ্রোহ জন্ম নিয়েছে। মুক্তির পথ খুঁজতে গিয়েও ভাবনার জগতের অনেকটাই দখল করে নিয়েছিল এই ধর্ম আর রাজনীতি। পিউরিটান সব সময়েই ছিল। কিন্তু তারপরেও সূক্ষ্মভাবে এডালটারেটেড হয়েছি। এই সময়টার ভেতরে আমার অনেক পরিবর্তন হয়েছে আমি বুঝতে পারি। ধর্ম, রাজনীতি আর দর্শন এগুলো অনেকটা এলোমেলোভাবে কখনো কখনো রুক্ষভাবে আমার ভেতরে প্রবেশ করেছে। চোখ বন্ধ করলে আমি আমার পরিবর্তনগুলো দেখি, ফেসবুক স্ক্রল করলে অস্থিরতার চিত্র দেখতে পাই। আমি অবাক হই। কিন্তু জীবন কখনো এক জায়গায় দাঁড়িয়ে থাকে না। সময় যেমন অতীত হয়, বোধও তেমনি হয় অতীত, ব্যাকডেটেড। এই ফেলে যাওয়া বোধ থেকে যে নস্টালজিয়া তৈরি হয়, তা বোধ হয় একধরনের ফিলোসফি। আমার ফেলে আসা দিনগুলোর দিকে তাকালে স্বার্থের টানে আমি বিচলিত হই, কিন্তু সংস্পর্শগুলো যখন দেখি আমি অবাক হই। সত্যকে এড়ানো যায় না, পাশ কাটানো যায় না। সত্যকে স্বীকার করে নিতে হয়। আমি স্বীকার করে নিই। কিন্তু সত্য কি, কীভাবেই বা তা সত্য, তা আমি বুঝি না।

চার. সুদূর এই অস্ট্রেলিয়ায় এখন আমার ডিপার্টমেন্টের হেডকে দেখি হাফপ্যান্ট পরে একটা বাইক চালিয়ে অফিসে আসেন। গুড ডে ফিদা, ডেভিডের সঙ্গে দেখা হলেই সম্ভাষণ জানান। অফিস অ্যাসিস্ট্যান্ট মিসেস এলাইনি কোনো কারণে অফিসে গেলেই বলে ওঠেন, হাউ ক্যান আই হেল্প ইউ টুডে, হানি? ওরিয়েন্টেশন উইকে ভার্সিটির সামনে ফ্রি বিয়ার, ওয়াইন বিতরণ করা হয় নবাগত স্টুডেন্টদের মাঝে। বছরে খুব ঘটা করে একটা পার্টি হয়, নাম টোগা পার্টি। টোগা পার্টির ইতিহাস অন্যরকম হলেও পার্টিটা মূলত অপজিট জেন্ডারের মধ্যে ফ্রেন্ডশিপের জন্য ব্যবহৃত বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্যোগ। হাফপ্যান্ট পরে স্কুল প্রধানের অফিসে আসা কিংবা হানি বলে সম্বোধন করাটা ইতস্তত করে না আমায়। এ রকম পরিবেশে থেকে আমি এখন অভ্যস্ত হয়েছি নাক উঁচু করে ধরা সেই ছবিটির বিষয়ে। আমি বুঝতে পারি, এটা একটা সাবলীলতা যা এদের কালচারের সঙ্গে মানানসই। আমার প্রফেসরের সঙ্গে যখন ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে আড্ডা হয়, মাঝে মাঝে বলি আমি আমাদের কথা, বাংলাদেশে আমাদের শিক্ষকতার ধরন। বাংলাদেশে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা রাজনীতি করেন, আবার সেই সূত্রে দেশের রাষ্ট্রপতি হন। শুনে তিনি অবাক হন, বোধকরি মজাও পান। (তবে বারাক ওবামাও যে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ছিলেন সেই উদাহরণ টেনে তাকে কিছুটা নিবৃত্ত করি।) তবে, বুঝতে পারি এরা অন্যরকম জীবনযাপন করে আর খুব সন্তর্পণে ধর্ম আর রাজনীতিকে পাশ কাটিয়ে চলে। তাই এই বিষয়ে কথোপকথন বেশি দূর এগোয় না। বাংলাদেশ থেকে আসার সময় ব্যাকস্ট্রিট বয়েজের একটা প্রিয় গান আমার ফোনের ওয়েলকাম টিউনে ছিল। সেটার ভাবাবেগ কিংবা প্রেজেন্টেশন হয়তো হাবিবের সেই গানটির মতো ছিল না। তবে, আজ বুঝতে পারি আমিও কিন্তু পরিবর্তিত হয়েছিলাম। এভাবে ক্রমে ক্রমে আমরা সবাই বোধ হয় বিভিন্ন রঙ্গে রঞ্জিত হই, আর আপন রংটি হারিয়ে যায় তাদের মাঝে। মাঝে মাঝে নির্জনতায় আবদ্ধ হয়ে নিজেকে একা করে জীবনের গভীরতম বোধকে আমি অনুভব করতে চেষ্টা করি। বিশাল আকাশের নিচে জোছনার অপূর্ব রূপ আমি দেখি কিংবা গভীর রাতের নিস্তব্ধতা, কিন্তু কেন যেন গভীরে তা আজ আমি অনুভব করতে পারি না। নিদ্রাহীন দীর্ঘ রজনী আমি অপেক্ষা করি, কোনো দিন কি পারব সেই বোধকে স্পর্শ করতে। অবোধ নিজেকে বোঝানোর চেষ্টা করি, যা ঘটছে তাই বাস্তবতা আর ভাগ্যে যা আছে তা হবেই। As the Holy Quran says, Every man’s fate, we have fastened on his own neck. (-Sura bani israil.) আমরা কি করব না করব সবই পূর্ব নির্ধারিত, তাই মাঝে মাঝে মনে হয় কি হবে চিন্তা করে? মেনে নিয়ে অভ্যস্ত হওয়াই যেন জীবনের উদ্দেশ্য। একদা দুর্বিনীত ভেবে যা বাধা দিয়েছিলাম তা আজ আমার জীবনের অংশ, এটাই ছিল অবধারিত নিয়তি। তাই নিয়তির হাতে সব ছেড়ে ছুড়ে দিয়ে অপেক্ষা করাই ভালো। আমি অপেক্ষা করি।

ফিদা হাসান: গবেষক ও বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক, ব্রিসবেন, অস্ট্রেলিয়া।

Click the button right below to see from the published links.

22 Oct 2015

[Bangla] Awareness and rules of law.

The Daily Prothom-alo

This article published in the leading newspaper The Daily Prothom-alo, Bangladesh. This talk about social awareness and rules of the law. Click + from top right to read.

Bangla_NewspaperDaily-Prothom-alo Author: Fida Hasan

[Bangla] Awareness and rules of law.

Author: Fida Hasan
Bangla_NewspaperDaily-Prothom-alo
About The Publication
অভিজ্ঞতা/উপলব্ধি

সচেতনতা ও আইনের শাসন

এক। প্রথম ব্রিসবেন এসেই যে বাসাটায় উঠেছিলাম সেটা একটা কাঠের ডুপ্লেক্স বাসা। এখানে প্রায় সব বাসাগুলো ডুপ্লেক্স আর কাঠ দিয়ে নির্মিত। আমি যে বাসাটায় উঠেছিলাম সেই বাসাটার মালিক ছিলেন মার্গারেট নামের এক বৃদ্ধা নারী। এখানের রীতি অনুসারে তাকে আমরা মার্গারেট নামেই ডাকতাম। নাম ধরে ডাকলেই তারা স্বস্তিবোধ করেন! ব্রিসবেনে পৌঁছার আগেই মার্গারেটের সঙ্গে আমার চিঠি চালাচালি হয়। তাই এসেই সরাসরি একটা গোছানো রুমে উঠে পড়ি। মার্গারেটের সাদা রঙের বাসাটা বেশ পুরোনো, শুনেছি এক শ বছরের মতো হবে। প্রথম দর্শনে বাসাটা দেখে একটু অবাকই হই। ভয়ও কি করেছিল? যত দুর মনে পড়ে, একটু একটু করেছিল, তবে অবাক হয়েছিলাম খুব বেশি। অস্ট্রেলিয়ায় আমার প্রথম রাতটা কাটাবার পর খুব সকালে ঘুম থেকে উঠে প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্দেশে রওনা দেওয়ার। এমন সময় খেয়াল করলাম, আমার রুমের দরজায় কোনো লক নেই। ছোট্ট একটা ছিটকিনি মতো আছে, কিন্তু কোনো তালা লাগিয়ে বন্ধ করার ব্যবস্থা নেই। তাই বিষয়টা নিয়ে বিপদেই পড়ে গেলাম। কেননা বাংলাদেশ থেকে আমি তিনটা বড় বড় সুটকেস ভরে সুই-সুতা থেকে শুরু করে যা যা দরকার কিনে নিয়ে এসেছি! ভাবছি, এ ভাবেই কী রেখে যাব? চোরের তো গোছানোও লাগবে না, সবকিছুই গোছানো আছে, জাস্ট নিয়ে যেতে হবে। এ অবস্থায় কী করব বুঝতে পারছিলাম না। মার্গারেটের এই বাসায় অভিক নামের এক বাংলাদেশি থাকেন। একই বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়েন। দুশ্চিন্তাগ্রস্ত হয়ে বিষয়টা আমি অভিকের সঙ্গে শেয়ার করলাম। অভিককে জিজ্ঞাসা করলাম, কি করা যায়। শুনে নির্লিপ্ত ভাবে বললেন, এভাবেই রেখে দিন, চাইলে দরজাটা খুলেও রাখতে পারেন, কেউ কিচ্ছু নেবে না। এই বলে তিনি বাসার সদর দরজাটাও খুলে রেখে বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্দেশে রওনা দিলেন। আমি কী করা উচিত না বুঝেই অনেকটা মোহাচ্ছন্ন ভঙ্গিতে সবকিছু ও ভাবে রেখে তার সঙ্গে চলে গেলাম। কিন্তু মনটা খচখচ করছিল, ল্যাপটপটা রেখে এসেছি, রেখে এসেছি আমার গবেষণা সংক্রান্ত হার্ডডিস্কগুলো। ভাবছিলাম, আমার তো সবই ওগুলোতে! অস্বস্তি নিয়ে তাই সময়টা কাটতে থাকে। বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম দিন ছিল ব্যস্ততাময়। বেশ কিছু অফিশিয়াল কাজ করতে হয়। কিন্তু এত ব্যস্ততার মাঝেও বাসার দরজা খুলে রেখে আসার বিষয়টা আমার বাংলাদেশে জীবন অভিজ্ঞতার আলোকে মস্তিষ্ক মেনে নিতে পারছিল না। মনে হচ্ছিল, এই বুঝি গিয়ে দেখব সব চুরি হয়ে গেছে। দুরুদুরু বুকে প্রথম দিনের কাজ শেষে বিকেলে ফিরে আসি। ফিরে এসে অবাক হয়ে স্বস্তির নিশ্বাস ছাড়ি। নাহ, সবকিছু তাদের জায়গা মতোই আছে। সন্ধ্যার একটু আগে মার্গারেট দেখা করতে আসেন। পরিচিত হওয়ার পর তাকে জানালাম যে, গত রাতে আমার শীত লেগেছিল। শুনে তিনি আমাকে একটা ব্লানকেট এনে দিলেন। ব্রিসবেন শহরে উৎ​সবের দিন আতশবাজির দৃশ্যব্রিসবেন শহরে উৎ​সবের দিন আতশবাজির দৃশ্যএরপর বললাম, বাসায় তো তালাচাবি নেই, আমার কিছু গুরুত্বপূর্ণ জিনিস আছে। কি করা যায়…। আমার কথা শুনে মার্গারেট আমার দিকে বেশ কিছুক্ষণ অবাক হয়ে তাকিয়ে রইলেন। তারপর তাকে বুঝিয়ে বললাম, সিকিউরিটি তো একটা বিষয়। কিন্তু তিনি বুঝলেন যে, বাংলাদেশ থেকে আসা এই নতুন ছেলেটি আস্থাহীনতায় ভুগছে, তার সিকিউরিটি দরকার। এরপর তিনি যেটা করলেন, তাতে আমি কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে গিয়েছিলাম। এটা মনে রাখার মতো একটা বিষয়ও বটে। আমার কথার পর মার্গারেট কোথা থেকে যেন একটা মিনিয়েচার সাইজের তালা আনলেন আমার জন্য। খুব ছোট তালা যা সাধারণত লাগেজ বা হ্যান্ড ব্যাগের সিকিউরিটিতে ব্যবহৃত হয়। এনে আমাকে দিয়ে বললেন, এই যে তোমার সিকিউরিটি। ছোট সময় অনেক গল্প শুনতাম, বিশেষ করে পরিবারের বড়দের কাছ থেকে। কিছু গল্প ইসলামিক বই গুলোতেও পড়েছি। গল্পগুলো অনেকটা ‘মিথ’ হিসেবেই আমাদের বলা হতো। মিথ বলছি এ জন্য যে ওগুলো আমাদের শোনানো হতো, কেননা ঘটনাগুলো আগে ঘটেছিল, এখন ঘটে না, আর এখন সম্ভবও না। এমনই একটা গল্প ছিল কোনো এক খলিফার আমলের। খলিফার রাজ্যের কোনো একটা জায়গায় খুব বেশি চুরি হতো। সেই চুরি কোনোভাবেই বন্ধ করা যাচ্ছিল না। তাই বন্ধ করতে একজন শক্ত গভর্নর নিয়োগ দেন খলিফা। সেই গভর্নর এসেই একটা নতুন আইন প্রণয়ন করেন এবং রাত ১২টার পর নগরীতে বের হওয়ার ওপর সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞা জারি করেন। যে বাইরে বের হবে তার হাত কেটে দেওয়া হবে বা তাকে হত্যা করা হবে। এই আইনের জন্য প্রথম কয়েক দিন বেশ কয়েকজন মারা পড়ল। এরপর ধীরে ধীরে শহরে চুরি কমে আসল। চুরি যখন বন্ধ হয়ে গিয়েছিল তখনো কঠোরভাবেই আইনটা বলবৎ থাকল। এতটাই কঠিন ছিল আইনের প্রয়োগ যে, একদিন কোনো এক বৃদ্ধা তার মেয়ের অসুস্থতার কারণে বাধ্য হয়েই রাতে বাসা থেকে বের হন। কিন্তু তাকেও বের হওয়ার জন্য হত্যা করা হয়। এত কঠোরতার পরই চুরি বন্ধ হয়। আর বিষয়টা এমন পর্যায়ে দাঁড়ায় যে, এরপর থেকে নগরীর সবাই রাতে বাসার দরজা খুলে ঘুমাত, কিন্তু কিছুই চুরি হতো না। যখন ছোট ছিলাম তখন এই গল্পগুলো শুনতাম আর আনন্দ পেতাম। অবাকও হতাম। তবে একই সঙ্গে সূক্ষ্মভাবে হয়তো একটা ধারণা আমাদের মধ্যে বদ্ধমূল হতো, হয়েছে, এত কঠিন হওয়া আমাদের পক্ষে সম্ভব নয়। তাই দরজা খুলে ঘুমানোর মতো পরিবেশ আমাদের আসবে না। যখন হয়েছিল তখন ছিল খলিফাদের আমল, কিছু মহামানুষ যাদের আমরা ফলো করি তারা পেরেছিল। আমাদের পক্ষে সম্ভব নয় (আক্ষরিক অর্থে আমরা তা পারছিও না)। কিন্তু এই হাজার হাজার মাইল দূরে যেখানে হয়তো কোনো খলিফা কখনো আসেননি, সেই অর্থ ধর্মের প্রভাবও নেই কিন্তু মানুষ এখানে ঠিক সেই মিথিক্যাল জীবন যাপন করে। আমরা একজন খলিফার জন্য অপেক্ষা করি, আর এরা সবাই যেন সেই খলিফার প্রতিরূপ। দুই. বিড়াল। প্রতীকী ছবিবিড়াল। প্রতীকী ছবিমার্গারেটের বাসার সামনে একটা বিড়াল থাকে। সামনে বলছি এই কারণে যে, বিড়ালটা ভুলেও কখনো বাসায় ঢোকে না। বাসার চারপাশ দিয়েই ঘুরঘুর করে। কেউ বাসায় এলে বিড়ালটি তার সঙ্গে বাইরের সিঁড়ি দিয়ে দোতলায় উঠে ঠিক দরজার সামনে এসে থেমে যায়। সেখানে বসে থাকে কিন্তু দরজার ভেতর দিয়ে ঘরের ভেতরে ঢোকে না। প্রথমে বিড়ালটির সঙ্গে আমাকে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হলো এভাবে। ও একটা Wild Cat. আমি বিশ্বাস করিনি। কেননা Wild Cat বলতে আমি যা বুঝি, বিড়ালটি মোটেও তেমনটা নয়। পরবর্তীতে আমি সবার সঙ্গে কথা বলে যেটা বুঝলাম, এটা সম্ভবত কোনো এক সময় Pet ছিল কিন্তু সে তার মনিবকে হারিয়ে Wild হয়ে গেছে। মানে এখন তার কোনো মনিব নেই। বিড়ালটা দেখতে সুন্দর হলেও লক্ষ্য করলাম কেউই এই বিড়ালটাকে পছন্দ করে না। মার্গারেট তো বারণই করে দিয়েছেন ওই বিড়ালটাকে কিচ্ছু খেতে দেওয়া যাবে না। আমি যখনই অফিস থেকে বাসায় ফিরি বিড়ালটি আমার পায়ে-পায়ে সিঁড়ি বেয়ে দোতলায় উঠে আসে কিন্তু দরজা ক্রস করে ভেতরে ঢোকে না। আমি ঢুকে যাই কিন্তু ও দাঁড়িয়ে থাকে। এটা নিঃসন্দেহে একটা ট্রেনিংয়ের ফলাফল। কোনো এক সময়, হয়তো বা অনেক আগে তাকে তার মনিব শিখিয়েছিল, তা সে ভোলেনি! এত দিন পর সে তার মনিবকে হারিয়ে দিগ্ভ্রান্ত, খেতে পায় না (খেতে না পেয়ে একদিন নাকি মারাও যাচ্ছিল প্রায়), তারপরও সে তার শিখিয়ে দেওয়া জীবন থেকে বেরিয়ে আসছে না। কিন্তু দরজাটা পেরোলেই ডাইনিং টেবিলে খাবার থাকে সব সময়, সারাটা দিন বাসায় কেউই তাকে না, চাইলেই সে ইচ্ছামতো খেতে পারে। কিন্তু সে ভুলেও কাজটা করে না। বাংলাদেশে থাকতে আমার আদরের পোষা বিড়ালটাকেও তো দেখেছি আমার খাবার কেড়ে খেয়ে ফেলতে আর ফেলে রাখা খাবার তো সে খেয়েছেই। কিন্তু এই বিদেশ বিভূঁয়ে এসে এমন দৃশ্য দেখে শুধুই অবাকই নয়, ভাবিতও হয়েছি। কীভাবে সম্ভব? সময় গড়িয়ে এখন বুঝতে পারি, এর নাম ট্রেনিং ও ডিসিপ্লিন। এ রকম একটা ডিসিপ্লিনড লাইফ এদের বিশ্বের মধ্যে শুধু ধনীই নয়, সবচেয়ে সুখী দেশ হিসেবে পরিণত করেছে। বুঝতে পারছি, সুখের জন্য শুধুই ধর্ম বা বিশ্বাস নয় দরকার সচেতনতা ও আইনের শাসন।

Click the button right below to see from the published links.

17 Feb 2020

How Student Politics Looks Like in Australia

The Daily Prothom-alo

This article published in the leading newspaper The Daily Prothom-alo, Bangladesh. This talk about student politics in Australia and Bangladesh. Click + from top right to read.

Bangla_NewspaperDaily-Prothom-alo Author: Fida Hasan

How Student Politics Looks Like in Australia

Author: Fida Hasan
Bangla_NewspaperDaily-Prothom-alo
About The Publication

অস্ট্রেলিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ছাত্র রাজনীতি যেমন

কয়েক বছর আগে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মুঞ্জরি কমিশনের (ইউজিসি) এক প্রতিনিধিদল এসেছিল অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ডের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় পরিদর্শনে। দলটি কুইন্সল্যান্ড ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজিতে (কিউইউটি) আসায় তাদের সঙ্গে আমার কিছুটা সময় কাটানোর সুযোগ হয়েছিল। ওই দলে ইউজিসির চেয়ারম্যান ও সদস্য ছাড়াও কয়েকজন সিনিয়র ও জুনিয়র লেভেলের সরকারি আমলা ছিলেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম বুঝতে কিউইউটির অধ্যাপক ও প্রশাসনের প্রতিনিধিদের সঙ্গে তাদের মতবিনিময় হয়েছিল। মতবিনিময়ে একই সঙ্গে কিউইউটির বিভিন্ন বিষয়ের ওপর বেশ কয়েকটি প্রেজেন্টেশনও ছিল। এমনই এক প্রেজেন্টেশনের পর ইউজিসির প্রতিনিধিদলের একজন আমলা সদস্য হঠাৎই ‘উপস্থাপককে’ একটি প্রশ্ন করেন কিউইউটির ছাত্ররাজনীতি নিয়ে। প্রশ্নটি ছিল এমন, ‘আপনাদের শিক্ষার্থীরা অ্যাডমিনিস্ট্রেশনকে কি ডিস্টার্ব দেয় না? বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ করে দেয় না?’ এই প্রশ্নটি বোঝাতে অবশ্য প্রশ্নকারীকে বেশ বেগ পেতে হয়েছিল। উপস্থাপক এই খাপছাড়া প্রশ্নটা প্রথমে বুঝতে পারেননি। আমি প্রথমে ভেবেছিলাম, ভাষাগত কারণে হয়তো তিনি প্রশ্নটি বুঝছেন না। কিন্তু পরে বুঝতে পারলাম, শিক্ষার্থীরা যে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক কার্যক্রম ব্যাহত করতে পারে এমন কোনো অ্যাটিচিউড সম্পর্কে তারা ওয়াকিবহাল নয়। তাই বিষয়টি বুঝতে তার সমস্যা হচ্ছিল। যাহোক, এই প্রশ্নের উত্তরে কিউইউটির প্রশাসনের উপস্থাপক বলেছিলেন, কিউইউটিতে স্টুডেন্ট প্রতিনিধিত্ব একটি স্টুডেন্ট গিল্ডের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের কাউন্সিলের সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকে। তাই তাদের কোনো বিষয় থাকলে তা তারা প্রকাশ করতে পারে কাউন্সিলে। এরপর সম্পূরক প্রশ্নে প্রশ্নকারী আবার জিজ্ঞাসা করেছিলেন, দেশের রাজনৈতিক কোনো কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বন্ধ করে দেন না? কিছুটা অবাক হয়ে উত্তরদাতা পাল্টা প্রশ্ন করেছিলেন, কেন? বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ করবেন কেন? রাজনৈতিক কারণ থাকলে পার্লামেন্ট হাউসে যাবেন তাঁরা। তাঁর এহেন উত্তরে এ বিষয়ে আর কথা পরবর্তী সময়ে এগোয়নি। আসলে বাংলাদেশের প্রচলিত ছাত্ররাজনীতি চর্চার পরিপ্রেক্ষিতে এমন কৌতূহল হয়তো স্বাভাবিকই। কেননা, বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ছাত্ররাজনীতি সরাসরি দেশের প্রধান রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সংযুক্ত। তাই সেসব রাজনৈতিক দলের কার্যকলাপের অনুরূপ কর্মকাণ্ড ছাত্রসংগঠনগুলোও চর্চা করে থাকে। যার ফল হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাভাবিক কর্মকাণ্ড প্রভাবিতসহ তারা কখনো কখনো জোরপূর্বক বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরীণ কর্মকাণ্ড বন্ধ করে দিয়েও থাকে। কয়েক দশক ধরে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর সরকার কর্তৃক অলিখিতভাবে রাজনৈতিক বিবেচনায় নিয়োগপ্রাপ্ত হয়ে থাকেন। যেখানে কখনো কখনো এই ছাত্রসংগঠনগুলোর পছন্দের ভূমিকাও থাকে। সে যা–ই হোক, কিউইউটিতে পড়াশোনার সুবাদে খুব কাছ থেকে এখানকার ছাত্র সংগঠনগুলোর কার্যক্রম আমার পর্যবেক্ষণ করার সুযোগ হয়েছে। উদাহরণ হিসেবে এদের কার্যক্রম তাদের নির্বাচনী প্রচারপত্র থেকেই অনেকটা বোধগম্য করা সম্ভব। কিউইউটির প্রধান দুটি স্টুডেন্ট দলের একটির নাম ইপিআইসি। তারা অনেকবার নির্বাচিত হয়েছে। এদের ২০১৬ সালের নির্বাচনী প্রচারপত্রে প্রথমেই দেখা যাচ্ছে, তাদের কার্যক্রমের আওতায় বিভিন্ন ধরনের খাওয়াদাওয়ার ব্যবস্থা তারা ফ্রিতে করে থাকে। যেমন কুকিজ, এনার্জি ড্রিংক, কফি ইত্যাদি। তারা দাবি করছে কিউইউটিতে অস্ট্রেলিয়ার সবচেয়ে বড় ‘ইউনিভার্সিটি বার’ তারা প্রতিষ্ঠা করেছে এবং নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি অনুসারে তারা পরবর্তী সময়ে বিচ পার্টি, ডিসকো পার্টি ও ফ্ল্যাশব্যাক পার্টির আয়োজনও করবে। পরবর্তী পয়েন্টে তারা লিখেছে, তাদের দল কিউইউটিতে সর্ব বৃহৎ সার্ভে পরিচালনার মাধ্যমে কিছু গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কিছু এক্সিজটিং পলিসি বাতিল করেছে। যেমন ক্রিয়েটিভ ইন্ডাস্ট্রিতে শিক্ষার্থীদের ওপরে অ্যাডমিন একটা ওভার চার্জ করেছিল, সেটা তারা রিফান্ডের ব্যবস্থা করছে। চতুর্থ পয়েন্টটা খুবই তাৎপর্যপূর্ণ। ইপিআইসি বলছে, তাদের কাছে শিক্ষার্থী হচ্ছে সবচেয়ে বড় প্রায়োরিটি। তাই শিক্ষার্থী নিয়ে যত পলিটিকস আছে, তা তারা কিউইউটি কাউন্সিলের মাধ্যমেই শেষ করে। তারা কখনোই কোনো পলিটিক্যাল পারপাজে (অর্থাৎ দেশের রাজনীতিতে) স্টুডেন্ট পলিটিকসকে ব্যবহার করে না। এই পয়েন্টটাকে তারা নাম দিয়েছে ‘Zero Politics’. এ ছাড়া কিউইউটি guild-এ তারা ক্লাব সংখ্যা ১৩০-এ উন্নীত করেছে এবং এই ক্লাবগুলোর মাধ্যমে তারা শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন সার্ভিস দিয়ে যাচ্ছে। যেমন বিভিন্ন সোশ্যাল ইভেন্ট পরিচালনা বা স্পোর্টস অ্যাকটিভিটিজ পরিচালনা করছে। এই হচ্ছে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টুডেন্ট পলিটিকস। আমি বুঝতে পারছি, প্রথম পয়েন্টটা দেখে বাংলাদেশি পাঠকেরা অনেকেই হয়তো আঁতকে উঠবেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে মদের বার। তাদের জন্য বলা, মদ একটা স্বাভাবিক পানিয় এই দেশে। অস্ট্রেলিয়ার অ্যালকোহল আইন অনুসারে ১৮ বছরের ওপরে এটা বৈধ। যেহেতু বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে সেই তারুণ্য ছাড়িয়ে যৌবনে পদার্পণের সময়কাল, এখানেই তাই অ্যালকোহলের সমাদরটা দেখা যায়। তবে মদ খেয়ে নিজেকে কীভাবে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা থেকে সংবরণ করতে হয়, সেটাতেও তারা সিদ্ধহস্ত। তাই কখনোই মাতলামি বা অস্বাভাবিক আচরণ দেখা যায় এদের ভেতরে, বিশ্ববিদ্যালয়ে তো নয়ই। মানুষমাত্রই আমরা সাফল্য দ্বারা প্রভাবিত হই এবং যেকোনো সিস্টেমের সাফল্য তার ফলাফলে দৃশ্যত হয়। খুব সন্তর্পণে এখানে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো রাষ্ট্রীয় রাজনীতি থেকে ছাত্রছাত্রীদের দূরে সরিয়ে রেখেছে। এদের দেশে রাজনীতি আমাদের দেশের মতো ধ্বংসাত্মক নয়। তারপরও রাজনীতিকে উচ্চশিক্ষার আঙিনা থেকে দূরে রেখে তারা মেধা আর প্রতিভা বিকশিত করার সুযোগ করে দিয়েছে। শিক্ষা ও গবেষণায় তাদের ঈর্ষণীয় উন্নতি তাই পরিলক্ষিতও হচ্ছে। পক্ষান্তরে ধ্বংসাত্মক ও বিপথগামী রাজনীতির চর্চায় বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো নানা অঘটন নিয়তি হিসেবে স্বীকার করে নিয়েছে। একই সঙ্গে প্রায়ই অকালে মূল্যবান প্রাণ ঝড়ে পড়ছে। ফলাফলে সক্ষমতা থাকা সত্ত্বেও বিশ্ববিদ্যালয়গুলো আশানুরূপ সাফল্য অর্জন করতে পারছে না। আমার কেন যেন মনে হয় দেশের এই রাহুগ্রাস থেকে মুক্তি এখন সময়ের দাবি।  

Click the button right below to see from the published links.

28 Jan 2015

Improvement of Wheel: Life is endangered

The Daily Ittefaq BD

This article published in The Daily Ittefaq, Bangladesh. It talks about the modernization of the transportation system and its impact on human life. Click + from top right to read.

Bangla_NewspaperDaily-Ittefaq

Improvement of Wheel: Life is endangered

Bangla_NewspaperDaily-Ittefaq
07 Nov 2015

The worrying decline of science education

The Daily Financial Express BD

This article published in The Financial Express, Bangladesh. It talks about the declining trend of science education in Bangladesh. Click + from top right to read.

English_NewspaperThe Daily Financial Express Selected Author: Fida Hasan

The worrying decline of science education

Author: Fida Hasan
English_NewspaperThe Daily Financial Express Selected
About The Publication

Click the button right below to see from the published links (Page-6).

05 Jan 2014

Challenges of Science Education In Bangladesh

The Daily Ittefaq BD

This article published in The Daily Ittefaq, Bangladesh. It talks about the declining trend of science education in Bangladesh. Click + from top right to read.

Bangla_NewspaperDaily-Ittefaq Author: Fida Hasan

Challenges of Science Education In Bangladesh

Author: Fida Hasan
Bangla_NewspaperDaily-Ittefaq
About The Publication
[ বি জ্ঞা ন ]

বাংলাদেশে বিজ্ঞান শিক্ষার দুরবস্থা:চ্যালেঞ্জ উত্তরণে স্থানীয় উদ্যোগ

খোন্দকার ফিদা হাসান
বর্তমান যুগকে বলা হয় বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তির যুগ। বৈজ্ঞানিক ভিত্তি ছাড়া একটি সমাজ কিংবা দেশ আজকের বিশ্বে অকল্পনীয়। বিশ্বের অন্যতম ঘনবসতিপূর্ণ দেশ হিসাবে স্বীকৃত বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সম্পদ সীমিত। তাই মানবসম্পদের সঠিক ব্যবহারই হতে পারে বাংলাদেশের উন্নয়নের চাবিকাঠি। এমতাবস্থায় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির মাধ্যমেই মানবসম্পদের সঠিক ব্যবহার নিশ্চিত করা সম্ভব। এই বাস্তবতার মুখোমুখি দাঁড়িয়ে, বাংলাদেশের বিজ্ঞান শিক্ষা আজ অনেকটা উল্টো পথে চলছে। অথচ বিজ্ঞান শিক্ষা আর গবেষণায় বাঙালিদের রয়েছে অসামান্য অবদান। উদ্ভিদের জীবন রহস্যের উন্মোচন থেকে শুরু করে হালের কলেরার জীবাণু, ম্যাগনেটিক ট্রেন, সোলার এনার্জি সেল, পাটের জীনম নকশা কিংবা আর্সেনিক মুক্তকরণ সনোফিল্টার সবই বাঙালি বিজ্ঞানীদের আবিষ্কার। স্যার জগদীশ চন্দ্র বসু, সত্যেন্দ্রনাথ বসু, ড. কুদরত-ই-খুদা, ড. আবুল হুসসাম, ডা এম ফারুক কিংবা ড. মুহাম্মদ জাফর ইকবাল-এর নাম বাংলাদেশে বিজ্ঞান শিক্ষার অনুপ্রেরণা। এরপরও বিগত কয়েক দশকে বাংলাদেশে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক স্তরে আশংকাজনক হারে বিজ্ঞান শিক্ষার্থী কমেছে। দেশের ভবিষত্কল্পে বর্তমান অবস্থা তাই অশুভ । বলা হয়ে থাকে কৌতূহল থেকে বিজ্ঞানের জন্ম, আর কৌতূহলের বশবর্তী হয়েই মানুষ তার পারিপার্শ্বকে বুঝতে শিখে যা কখনো কখনো উদ্ভাবনের চাবিকাঠিও হয়ে যায়। এজন্য কথায় আছে, বিজ্ঞান শিক্ষা শুধুমাত্র বৈজ্ঞানিক গবেষণার নিমিত্তে নয় বরং বৈজ্ঞানিকভাবে চিন্তা-চেতনার জন্যও বটে। বিশ্বের উন্নত দেশগুলো যেখানে বিজ্ঞান শিক্ষায় ক্রমাগত এগিয়ে যাচ্ছে, গ্র্যাজুয়েট তৈরি করছে সেখানে বাংলাদেশ যেন বিজ্ঞান শিক্ষায় পিছু হাঁটছে। পরিসংখ্যান অনুযায়ী মাধ্যমিক স্তরে বিজ্ঞান শিক্ষার্থীর সংখ্যা বিগত কয়েক দশকের পর অর্ধেকে নেমে এসেছে। মাধ্যমিক পরীক্ষায় ১৯৮৮ সালে বিজ্ঞান বিভাগের পরিক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল সকল পরীক্ষার্থীর ৪১% অথচ ২০১০-এ এসে তা দাঁড়িয়েছে ২২%। ২০০০ সাল থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত বিজ্ঞান শিক্ষার্থী কমেছে ৩৪.৩২%। ছাত্র(৩২.৩%) অপেক্ষা ছাত্রীদের (৩৬.৩৪%) মধ্যে এই হার ছিল বেশি। দুটি পৃথক গবেষণা রিপোর্টের মাধ্যমে এ বিষয়ক প্রকৃত চিত্র ফুটে উঠেছে। গবেষণাকর্ম দুটির একটি পরিচালনা করে Bangladesh Freedom Foundation (BFF) ২০১০ সালে এবং অন্যটি পরিচালনা করে Teaching Quality Improvement (TQI) প্রজেক্ট। প্রথম গবেষণাটি ৭টি বিভাগের ২৪০টি স্কুল থেকে উপাত্ত সংগ্রহ করে এবং দ্বিতীয়টি ১৬টি জেলার ২০০টি স্কুলের উপর চালনা করে। মূলত দুটি গবেষণা রিপোর্টই বিজ্ঞান শিক্ষার একই অবস্থা নির্দেশিত করে। BFF গবেষণাপত্র থেকে দেখা যায়, বিগত কয়েক বছরে বিজ্ঞান শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় ৩১.৩৩% কমেছে। ব্যানবিস (Bangladesh Bureau of Educational Information and Statistics (BANBEIS)) পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ২০০১ সালে ৭,৮৬,২২০ জন মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীর মধ্যে ২,৬৪,১০০ জন ছিল বিজ্ঞান বিভাগের যা মোট শিক্ষার্থীর ৩৩.৫৯%। কিন্তু ২০১০ সালে সর্বমোট ৯,১২,৫৭৭ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে সেই সংখ্যা কমে হয়েছে ২,০৩,৯৯২জন যা ২২.৩৫%। অর্থাত্ এক দশকে মাধ্যমিক পর্যায়ে বিজ্ঞান শিক্ষার্থীর সংখ্যা কমেছে ১১.২৪%। একই দৃশ্য পরিলক্ষিত হয় উচ্চমাধ্যমিক স্তরেও। ২০০১ সালে ৫,২৫,৭৫৫ জন এইচএসসি পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১,২৬,৩১৫ জন ছিল বিজ্ঞান বিভাগের যা শতকরা ২৪.০৩ জন। কিন্তু ২০১০ সালে ৫,৮০,৬২৩ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে বিজ্ঞান শিক্ষার পরীক্ষার্থী কমে দাঁড়ায় ১,০৬,৫২৭ জন যা শতকরা ১৮.৩৫% জন। অর্থাত্ এক দশকে উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে বিজ্ঞান শিক্ষার্থীর সংখ্যা কমেছে শতকরা ৫.৬৮ জন। দুঃখজনক এই নিম্নমুখিতা আন্ডারগ্র্যাজুয়েট পর্যায়েও পরিলক্ষিত হচ্ছে। সামপ্রতিক এক গবেষণা রিপোর্ট প্রকাশ করে যে, ২০০৯ সালে মাধ্যমিক পর্যায়ে বিজ্ঞান শিক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল মোট শিক্ষার্থীর ১৪.৫% যা ২০১১ সালে কমে দাঁড়ায় ১৩.৩% এবং এখন(২০১৩) যা মাত্র ১২%! এই পরিসংখ্যান অনুযায়ী বিজ্ঞান শিক্ষার্থী শহর অঞ্চলের তুলনায় গ্রাম অঞ্চলে আশংকাজনকভাবে কম। কিন্তু কেন এই নিম্নগামিতা? উত্তর খুঁজতে গিয়ে বিজ্ঞান শিক্ষায় নিরুত্সাহিত হওয়ার বিভিন্ন কারণ খুঁজে পাওয়া যায়। তন্মধ্যে অন্যতম কারণ হিসাবে বিশ্বায়নের প্রভাবকে চিহ্নিত করা হয়। মূলত বিশ্বায়নের এই যুগে বাংলাদেশের মত উন্নয়নশীল দেশগুলো উন্নত দেশের জন্য তৈরিকৃত পণ্যদ্রব্য বিক্রয়ের এক ক্ষেত্র হিসাবে পরিগণিত হচ্ছে। উন্নত দেশগুলোর বহুজাতিক কোম্পানি তাদের শাখা খুলে পণ্যদ্রব্য বিক্রয় করছে যেখানে তারা কর্মচারী নিয়োগ দিচ্ছে যাদের বেশিভাগের কাজ শুধুমাত্র কোম্পানির প্রতিনিধি কিংবা বিক্রয়কারী হিসাবে। নিঃসন্দেহে এই ধরনের চাকরিতে বেতন খুবই উঁচুমানের আর কোন ধরনের বৈজ্ঞানিক কিংবা প্রকৌশলী দক্ষতার প্রয়োজন হয় না। ফলশ্রুতিতে সবাই বিজ্ঞান শিক্ষায় আগ্রহ হারিয়ে ফেলছে আর বাণিজ্য বিষয়ক শিক্ষার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে । এটা বর্তমান সময়ে বিজ্ঞান শিক্ষায় অনাগ্রহের একটা প্রধান কারণ হলেও এর পাশাপাশি বিজ্ঞান গ্র্যাজুয়েটদের চাকরির বাজারে অনেকটা অনিশ্চিত ভবিষ্যত্ আর আর্থিক সমস্যাও উল্লেখযোগ্য। এগুলোসহ আরো কিছু গুরুত্বপূর্ণ কারণ বিভিন্ন গবেষণা রিপোর্টে উঠে এসেছে। যেমন TQI এর রিপোর্ট সামগ্রিক বিজ্ঞান শিক্ষায় অবনমন খুঁজে পেয়েছে। তাদের জরিপ অনুযায়ী, প্রায় ১২.২৩% শিক্ষার্থী বিশ্বাস করে যে তাদের যোগ্য বিজ্ঞান শিক্ষকের অভাব রয়েছে। ১১.২৯% শিক্ষার্থী জানিয়েছে বিদ্যালয়ে বৈজ্ঞানিক সরঞ্জামাদি তথা পরীক্ষাগারের অভাব রয়েছে যা মূলত বিজ্ঞান শিক্ষার গুণগত অবনমনেরই পরিচয়ক। BFF এর রিপোর্টে উঠে এসেছে, ৬৫% মাধ্যমিক ও উচ্চ-মাধ্যমিক শিক্ষার্থী জানিয়েছে তাদের প্রয়োজনীয় সংখ্যক বিজ্ঞান শিক্ষক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নেই। BFF রিপোর্টে আরো উঠেছে যে গ্রামাঞ্চলের ৭৮.৫% শিক্ষক আর ৭৬.১% অভিভাবক মনে করে, প্রয়োজনীয় সংখ্যক গবেষণাগার আর সরঞ্জামাদি তাদের বিদ্যালয়ে নেই। উল্লেখিত সমস্যাগুলোর পাশাপাশি দেখা যাচ্ছে বিজ্ঞান শিক্ষাজনিত ব্যয় মানবিক কিংবা বাণিজ্য শিক্ষার ব্যয় থেকে অনেক বেশি। BFF সার্ভে অনুযায়ী, ৬০% বিজ্ঞান শিক্ষার্থী আর ৮০% মানবিক ও বাণিজ্য বিভাগের শিক্ষার্থী মনে করে বিজ্ঞান শিক্ষা অনেক বেশি ব্যয়বহুল। পরিসংখ্যান আরো বলে, বিজ্ঞান সিলেবাস তুলনামূলকভাবে অনেক বড় আর জটিল। বইগুলো অনেক বেশি বিষয় সম্বলিত। জরিপে ৩৯% বিজ্ঞানের শিক্ষক এই সিলেবাসকে বেশ কঠিন আর অনুপযুক্ত বলে দাবি করে আর ৪৫% শিক্ষার্থী তাদের পড়া বোঝে না বলে স্বীকার করে। তাই বলা যায়, বিজ্ঞান শিক্ষার নিম্নগামিতার কারণসমূহ মূলত অনেক। অধিকন্তু এই সমস্যাগুলোর পাশাপাশি কিছু সামাজিক সমস্যাও আছে, যেমন অভিভাবকদের নিরক্ষরতা ও অসচেতনতা এবং বিজ্ঞান শিক্ষাবিষয়ক কুসংস্কার বিজ্ঞান শিক্ষা প্রসারে অন্তরক। যেহেতু একটি দেশের উন্নতি দেশটির বৈজ্ঞানিক আর প্রযুক্তিগত জ্ঞানের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত, বিজ্ঞান শিক্ষার নিম্নগামিতা তাই দেশের বিশিষ্ট চিন্তাবিদ, শিক্ষকসমাজ তথা দেশপ্রেমীদের ভাবিত করেছে। এমতাবস্থায় বর্তমান অবস্থার উন্নতিকল্পে তারা বিভিন্ন মতামত প্রকাশ করেছে যা পরিস্থিতি উত্তরণের সহায়ক। তাদের সুপারিশ অনুযায়ী, অবস্থার উন্নতিকল্পে সরকারকে শিক্ষাখাতে বরাদ্দ বাড়াতে হবে এবং আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ যেমন ভারত ও পাকিস্তানের মত সরকারকে অবশ্যই বিজ্ঞান শিক্ষাখাতে আলাদা বরাদ্দ দিতে হবে। পাশাপাশি, শিক্ষার সকল স্তরে যুগোপযোগী কারিকুলামের সঠিক সমন্বয় করা প্রয়োজন। পাঠ্যবইগুলোকে বাহুল্যবিবর্জিত করে সরলভাবে উপস্থাপন করা আবশ্যিক। শিক্ষকদের বেতনকাঠামো বৃদ্ধি করা প্রয়োজন এবং প্রতিটি বিদ্যালয়ে বিজ্ঞান শিক্ষার জন্য গবেষণাগার স্থাপন করা প্রয়োজন। একই সাথে টেলিভিশনে শিক্ষা বিষয়ক প্রোগ্রাম প্রচারের মাধ্যমে বিজ্ঞান শিক্ষাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। উপরোল্লখিত প্রস্তাবনাগুলো দেশের জাতীয় পর্যায়ের নীতিনির্ধারণের সাথে জড়িত। তাই কালক্ষেপণ না করে স্থানীয় পর্যায় থেকে কিছু পদক্ষেপ নেয়া এখন অত্যাবশ্যকীয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। স্থানীয় পর্যায় থেকে উদ্যোগের মাধ্যমে আমাদের যেমন অনেক কিছুই করার আছে তেমনি করার উদ্দেশ্যে অনেক কিছু শেখারও আছে। যেমন, স্থানীয় পর্যায়ে উদ্যোগের প্রথমেই ছাত্র-শিক্ষক, অভিভাবক ও স্থানীয় জনগণ নিয়ে একটি নেটওয়ার্ক গড়ে তুলতে হবে যেটা স্থানীয় কমিউনিটিকে জাতীয় থেকে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সংযোজিত করবে। নেটওয়ার্কটির ব্যবস্থাপনায় স্থানীয় কমিটি কিংবা অনলাইনের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকেও ব্যবহার করা যেতে পারে। মূলত এই ধরনের নেটওয়ার্ক স্থানীয় পর্যায়ে এবং তা ছাড়িয়েও বাইরের সুযোগ-সুবিধা গ্রহণে সহায়তা করবে। এ ধরনের একটি নেটওয়ার্ক জ্ঞান আরোহণ ও বিতরণে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে, নেটওয়ার্কের মাধ্যমে বিভিন্ন বিষয়ের বিশেষজ্ঞদের সান্নিধ্য পাবার সম্ভাবনা সৃষ্টি করবে এমনকি এই ধরনের একটি নেটওয়ার্ক দেশ-বিদেশ থেকে শিক্ষার উন্নতিকল্পে আর্থিক সহায়তাও লাভ করতে পারে। নেটওয়ার্ক পরিচালনার মাধ্যমে এক ধরনের সামাজিক আন্দোলনের সূচনা হবে যার মাধ্যমে ঐক্য আর সচেতনতা বৃদ্ধি পাবে। এই ধরনের সংঘ অতঃপর ভালো ফলাফলধারী বিজ্ঞান স্নাতকদের শিক্ষকতা পেশায় আনতে প্রণোদনা যোগাবে। নিরক্ষর আর নিরুত্সাহিত অভিভাবকদের কাউন্সিলিং-এর মাধ্যমে উত্সাহিত করতে পারবে যেন তারা তাদের সন্তানদের বিজ্ঞান শিক্ষায় প্রতিবন্ধক না হয়ে সহায়ক হয়। একই সাথে বিজ্ঞানভীতি থেকে শিক্ষার্থীদেরকে মুক্তি দিতে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারবে। কথায় আছে , ‘দশের লাঠি একের বোঝা’। তাই এমন একটি সংঘবদ্ধ কমিউনিটি বিজ্ঞান শিক্ষার অবনমনকে রুখে নতুন দিনের সূচনা করতে সহায়ক ভূমিকা পালন করতে পারে। শিক্ষক আর অভিভাবকদের সচেতনতাকল্পে নেটওয়ার্কের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় সেমিনার, আলোচনা এবং প্রশিক্ষণের আয়োজন করা যেতে পারে। নেটওয়ার্কের মাধ্যমে নিয়মিত কর্মশালা, বিজ্ঞান মেলা কিংবা কুইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা যেতে পারে যেন এ দ্বারা শিক্ষার্থীরা উপকৃত ও প্রণোদিত হয়। নেটওয়ার্কের সদস্যরা চাইলে দরিদ্র শিক্ষার্থীর জন্য বৃত্তির ব্যবস্থাও করতে পারে। এ ধরনের একটি নেটওয়ার্কের মাধ্যমে স্থানীয়রা একটি ‘বিজ্ঞান ক্লাব’ স্থাপন করতে পারে। নবীন শিক্ষার্থীদের জন্য বিজ্ঞান ক্লাব একটি প্রণোদনার স্থান প্রমাণিত। সময়ের সাথে মাধ্যমিক এবং উচ্চ-মাধ্যমিক শিক্ষার্থীর সংখ্যা যেখানে বাড়ছে সেখানে বিজ্ঞান শিক্ষার্থীর সংখ্যা ক্রমাগত কমছে। এটা উদ্বেগের বিষয়। দেশের বিজ্ঞান শিক্ষার মান ও শিক্ষার্থীর পরিমাণের এমন অবনমন সকলকে ভাবিত করছে। পরিস্থিতির উন্নতি সাধনে সমস্যাগুলো চিহ্নিত করে সমাধানের লক্ষ্যে সরকারকে সরকারি এবং বেসরকারি পর্যায়ে উদ্যোগ নিতে হবে। পাশাপাশি স্থানীয় জনগণকেও সচেতনতার সাথে ও ছোট ছোট উদ্যোগের মাধ্যমে এগিয়ে আসতে হবে, তাহলেই গড়ে তোলা সম্ভব হবে বিজ্ঞান শিক্ষার জন্য এক অনুকূল পরিবেশ।

Click the button right below to see from the published links.

.05

Say Hello